কুরআনের বাংলা অনুবাদ

Surah Zukhruf

Previous         Index         Next

 

1.

হা-মীম

2.

শপথ সুস্পষ্ট কিতাবের,

3.

আমি একে করেছি কোরআন, আরবী ভাষায়, যাতে তোমরা বুঝ

4.

নিশ্চয় এ কোরআন আমার কাছে সমুন্নত অটল রয়েছে লওহে মাহফুযে

5.

তোমরা সীমাতিক্রমকারী সম্প্রদায়-এ কারণে কি আমি তোমাদের কাছ থেকে কোরআন প্রত্যাহার করে নেব?

6.

পূর্ববর্তী লোকদের কাছে আমি অনেক রসূলই প্রেরণ করেছি

7.

যখনই তাদের কাছে কোন রসূল আগমন করেছেন, তখনই তারা তাঁর সাথে ঠাট্টা-বিদ্রুপ করেছে

8.

সুতরাং আমি তাদের চেয়ে অধিক শক্তি সম্পন্নদেরকে ধ্বংস করে দিয়েছি পূর্ববর্তীদের এ ঘটনা অতীত হয়ে গেছে

9.

আপনি যদি তাদেরকে জিজ্ঞাসা করেন কে নভোমন্ডল ও ভূ-মন্ডল সৃষ্টি করেছে?

তারা অবশ্যই বলবে, এগুলো সৃষ্টি করেছেন পরাক্রমশালী সর্বজ্ঞ আল্লাহ

10.

যিনি তোমাদের জন্যে পৃথিবীকে করেছেন বিছানা এবং তাতে তোমাদের জন্যে করেছেন পথ, যাতে তোমরা গন্তব্যস্থলে পৌঁছতে পার

11.

এবং যিনি আকাশ থেকে পানি বর্ষণ করেছেন পরিমিত

আতঃপর তদ্দ্বারা আমি মৃত ভূ-ভাগকে পুনরুজ্জীবিত করেছি

তোমরা এমনিভাবে উত্থিত হবে

12.

এবং যিনি সবকিছুর যুগল সৃষ্টি করেছেন

এবং নৌকা ও চতুস্পদ জন্তুকে তোমাদের জন্যে যানবাহনে পরিণত করেছেন,

13.

যাতে তোমরা তাদের পিঠের উপর আরোহণ কর

অতঃপর তোমাদের পালনকর্তার নেয়ামত স্মরণ কর এবং বল পবিত্র তিনি,

যিনি এদেরকে আমাদের বশীভূত করে দিয়েছেন

এবং আমরা এদেরকে বশীভূত করতে সক্ষম ছিলাম না

14.

আমরা অবশ্যই আমাদের পালনকর্তার দিকে ফিরে যাব

15.

তারা আল্লাহর বান্দাদের মধ্য থেকে আল্লাহর অংশ স্থির করেছে

বাস্তবিক মানুষ স্পষ্ট অকৃতজ্ঞ

16.

তিনি কি তাঁর সৃষ্টি থেকে কন্যা সন্তান গ্রহণ করেছেন এবং তোমাদের জন্য মনোনীত করেছেন পুত্র সন্তান?

17.

তারা রহমান আল্লাহর জন্যে যে, কন্যা-সন্তান বর্ণনা করে, যখন তাদের কাউকে তার সংবাদ দেয়া হয়, তখন তার মুখমন্ডল কালো হয়ে যায় এবং ভীষণ মনস্তাপ ভোগ করে

18.

তারা কি এমন ব্যক্তিকে আল্লাহর জন্যে বর্ণনা করে, যে অলংকারে লালিত-পালিত হয় এবং বিতর্কে কথা বলতে অক্ষম

19.

তারা নারী স্থির করে ফেরেশতাগণকে, যারা আল্লাহর বান্দা

তারা কি তাদের সৃষ্টি প্রত্যক্ষ করেছে?

এখন তাদের দাবী লিপিবদ্ধ করা হবে এবং তাদের জিজ্ঞাসা করা হবে

20.

তারা বলে, রহমান আল্লাহ ইচছা না করলে আমরা ওদের পূজা করতাম না

এ বিষয়ে তারা কিছুই জানে না

তারা কেবল অনুমানে কথা বলে

21.

আমি কি তাদেরকে কোরআনের পূর্বে কোন কিতাব দিয়েছি, অতঃপর তারা তাকে আঁকড়ে রেখেছে?

22.

বরং তারা বলে, আমরা আমাদের পূর্বপুরুষদেরকে পেয়েছি এক পথের পথিক

এবং আমরা তাদেরই পদাংক অনুসরণ করে পথপ্রাপ্ত

23.

এমনিভাবে আপনার পূর্বে আমি যখন কোন জনপদে কোন সতর্ককারী প্রেরণ করেছি,

তখনই তাদের বিত্তশালীরা বলেছে, আমরা আমাদের পূর্বপুরুষদেরকে পেয়েছি এক পথের পথিক

এবং আমরা তাদেরই পদাংক অনুসরণ করে চলছি

24.

সে বলত, তোমরা তোমাদের পূর্বপুরুষদেরকে যে বিষয়ের উপর পেয়েছ, আমি যদি তদপেক্ষা উত্তম বিষয় নিয়ে তোমাদের কাছে এসে থাকি, তবুও কি তোমরা তাই বলবে?

তারা বলত তোমরা যে বিষয়সহ প্রেরিত হয়েছ, তা আমরা মানব না

25.

অতঃপর আমি তাদের কাছ থেকে প্রতিশোধ নিয়েছি

অতএব দেখুন, মিথ্যারোপকারীদের পরিণাম কিরূপ হয়েছে

26.

যখন ইব্রাহীম তার পিতা ও সম্প্রদায়কে বলল, তোমরা যাদের পূজা কর,

তাদের সাথে আমার কোন সম্পর্ক নেই

27.

তবে আমার সম্পর্ক তাঁর সাথে যিনি আমাকে সৃষ্টি করেছেন অতএব, তিনিই আমাকে সপথ প্রদর্শন করবেন

28.

এ কথাটিকে সে অক্ষয় বাণীরূপে তার সন্তানদের মধ্যে রেখে গেছে, যাতে তারা আল্লাহর দিকেই আকৃষ্ট থাকে

29.

পরন্ত আমিই এদেরকে ও এদের পূর্বপুরুষদেরকে জীবনোপভোগ করতে দিয়েছি, অবশেষে তাদের কাছে সত্য ও স্পষ্ট বর্ণনাকারী রসূল আগমন করেছে

30.

যখন সত্য তাদের কাছে আগমন করল, তখন তারা বলল, এটা যাদু, আমরা একে মানি না

31.

তারা বলে, কোরআন কেন দুই জনপদের কোন প্রধান ব্যক্তির উপর অবতীর্ণ হল না?

32.

তারা কি আপনার পালনকর্তার রহমত বন্টন করে?

আমি তাদের মধ্যে তাদের জীবিকা বন্টন করেছি পার্থিব জীবনে

এবং একের মর্যাদাকে অপরের উপর উন্নীত করেছি, যাতে একে অপরকে সেবক রূপে গ্রহণ করে

তারা যা সঞ্চয় করে, আপনার পালনকর্তার রহমত তদপেক্ষা উত্তম

33.

যদি সব মানুষের এক মতাবলম্বী হয়ে যাওয়ার আশংকা না থাকত, তবে যারা দয়াময় আল্লাহকে অস্বীকার করে আমি তাদেরকে দিতাম তাদের গৃহের জন্যে রৌপ্য নির্মিত ছাদ ও সিঁড়ি, যার উপর তারা চড়ত

34.

এবং তাদের গৃহের জন্যে দরজা দিতাম এবং পালংক দিতাম যাতে তারা হেলান দিয়ে বসত

35.

এবং স্বর্ণনির্মিতও দিতাম

এগুলো সবই তো পার্থিব জীবনের ভোগ সামগ্রী মাত্র

আর পরকাল আপনার পালনকর্তার কাছে তাঁদের জন্যেই যারা ভয় করে

36.

যে ব্যক্তি দয়াময় আল্লাহর স্মরণ থেকে চোখ ফিরিয়ে নেয়, আমি তার জন্যে এক শয়তান নিয়োজিত করে দেই, অতঃপর সে-ই হয় তার সঙ্গী

37.

শয়তানরাই মানুষকে সপথে বাধা দান করে, আর মানুষ মনে করে যে, তারা সপথে রয়েছে

38.

অবশেষে যখন সে আমার কাছে আসবে, তখন সে শয়তানকে বলবে, হায়, আমার ও তোমার মধ্যে যদি পূর্ব-পশ্চিমের দূরত্ব থাকত

কত হীন সঙ্গী সে

39.

তোমরা যখন কুফর করছিলে, তখন তোমাদের আজকের আযাবে শরীক হওয়া কোন কাজে আসবে না

40.

আপনি কি বধিরকে শোনাতে পারবেন?

অথবা যে অন্ধ ও যে স্পষ্ট পথ ভ্রষ্টতায় লিপ্ত,

তাকে পথ প্রদর্শণ করতে পারবেন?

41.

অতঃপর আমি যদি আপনাকে নিয়ে যাই, তবু আমি তাদের কাছে থেকে প্রতিশোধ নেব

42.

অথবা যদি আমি তাদেরকে যে আযাবের ওয়াদা দিয়েছি, তা আপনাকে দেখিয়ে দেই,

তবু তাদের উপর আমার পূর্ণ ক্ষমতা রয়েছে

43.

অতএব, আপনার প্রতি যে ওহী নাযিল করা হয়, তা দৃঢ়ভাবে অবলম্বন করুন

নিঃসন্দেহে আপনি সরল পথে রয়েছেন

44.

এটা আপনার ও আপনার সম্প্রদায়ের জন্যে উল্লেখিত থাকবে

এবং শীঘ্রই আপনারা জিজ্ঞাসিত হবেন

45.

আপনার পূর্বে আমি যেসব রসূল প্রেরণ করেছি, তাদেরকে জিজ্ঞেস করুন,

দয়াময় আল্লাহ ব্যতীত আমি কি কোন উপাস্য স্থির করেছিলাম এবাদতের জন্যে?

46.

আমি মূসাকে আমার নিদর্শনাবলী দিয়ে ফেরাউন ও তার পরিষদবর্গের কাছে প্রেরণ করেছিলাম,

অতঃপর সে বলেছিল, আমি বিশ্ব পালনকর্তার রসূল

47.

অতঃপর সে যখন তাদের কাছে আমার নিদর্শনাবলী উপস্থাপন করল, তখন তারা হাস্যবিদ্রুপ করতে লাগল

48.

আমি তাদেরকে যে নিদর্শনই দেখাতাম, তাই হত পূর্ববর্তী নিদর্শন অপেক্ষা বৃহ

এবং আমি তাদেরকে শাস্তি দ্বারা পাকড়াও করলাম, যাতে তারা ফিরে আসে

49.

তারা বলল, হে যাদুকর,

তুমি আমাদের জন্যে তোমার পালনকর্তার কাছে সে বিষয় প্রার্থনা কর, যার ওয়াদা তিনি তোমাকে দিয়েছেন; আমরা অবশ্যই সৎপথ অবলম্বন করব

50.

অতঃপর যখন আমি তাদের থেকে আযাব প্রত্যাহার করে নিলাম, তখনই তারা অঙ্গীকার ভঙ্গ করতে লাগলো

51.

ফেরাউন তার সম্প্রদায়কে ডেকে বলল, হে আমার কওম,

আমি কি মিসরের অধিপতি নই?

এই নদী গুলো আমার নিম্নদেশে প্রবাহিত হয়,

তোমরা কি দেখ না?

52.

আমি যে শ্রেষ্ট এ ব্যক্তি থেকে, যে নীচ এবং কথা বলতেও সক্ষম নয়

53.

তাকে কেন স্বর্ণবলয় পরিধান করানো হল না,

অথবা কেন আসল না তার সঙ্গে ফেরেশতাগণ দল বেঁধে?

54.

অতঃপর সে তার সম্প্রদায়কে বোকা বানিয়ে দিল, ফলে তারা তার কথা মেনে নিল

নিশ্চয় তারা ছিল পাপাচারী সম্প্রদায়

55.

অতঃপর যখন আমাকে রাগাম্বিত করল তখন আমি তাদের কাছ থেকে প্রতিশোধ নিলাম এবং নিমজ্জত করলাম তাদের সবাইকে

56.

অতঃপর আমি তাদেরকে করে দিলাম অতীত লোক ও দৃষ্টান্ত পরবর্তীদের জন্যে

57.

যখনই মরিয়ম তনয়ের দৃষ্টান্ত বর্ণনা করা হল, তখনই আপনার সম্প্রদায় হঞ্জগোল শুরু করে দিল

58.

এবং বলল, আমাদের উপাস্যরা শ্রেষ্ঠ, না সে?

তারা আপনার সামনে যে উদাহরণ উপস্থাপন করে তা কেবল বিতর্কের জন্যেই করে

বস্তুতঃ তারা হল এক বিতর্ককারী সম্প্রদায়

59.

সে তো এক বান্দাই বটে আমি তার প্রতি অনুগ্রহ করেছি

এবং তাকে করেছি বণী-ইসরাঈলের জন্যে আদর্শ

60.

আমি ইচ্ছা করলে তোমাদের থেকে ফেরেশতা সৃষ্টি করতাম, যারা পৃথিবীতে একের পর এক বসবাস করত

61.

সুতরাং তা হল কেয়ামতের নিদর্শন

কাজেই তোমরা কেয়ামতে সন্দেহ করো না এবং আমার কথা মান

এটা এক সরল পথ

62.

শয়তান যেন তোমাদেরকে নিবৃত্ত না করে

সে তোমাদের প্রকাশ্য শুত্রু

63.

ঈসা যখন স্পষ্ট নিদর্শনসহ আগমন করল, তখন বলল,

আমি তোমাদের কাছে প্রজ্ঞা নিয়ে এসেছি

এবং তোমরা যে, কোন কোন বিষয়ে মতভেদ করছ তা ব্যক্ত করার জন্যে এসেছি,

অতএব, তোমরা আল্লাহকে ভয় কর এবং আমার কথা মান

64.

নিশ্চয় আল্লাহই আমার পালনকর্তা ও তোমাদের পালনকর্তা অতএব, তাঁর এবাদত কর

এটা হল সরল পথ

65.

অতঃপর তাদের মধ্যে থেকে বিভিন্ন দল মতভেদ সৃষ্টি করল

সুতরাং যালেমদের জন্যে রয়েছে যন্ত্রণাদায়ক দিবসের আযাবের দুর্ভোগ

66.

তারা কেবল কেয়ামতেরই অপেক্ষা করছে যে, আকস্মিকভাবে তাদের কাছে এসে যাবে এবং তারা খবর ও রাখবে না

67.

বন্ধুবর্গ সেদিন একে অপরের শত্রু হবে, তবে খোদাভীরুরা নয়

68.

হে আমার বান্দাগণ, তোমাদের আজ কোন ভয় নেই এবং তোমরা দুঃখিতও হবে না

69.

তোমরা আমার আয়াতসমূহে বিশ্বাস স্থাপন করেছিলে এবং তোমরা আজ্ঞাবহ ছিলে

70.

জান্নাতের প্রবেশ কর তোমরা এবং তোমাদের বিবিগণ সানন্দে

71.

তাদের কাছে পরিবেশন করা হবে স্বর্ণের থালা ও পানপাত্র

এবং তথায় রয়েছে মনে যা চায় এবং নয়ন যাতে তৃপ্ত হয়

তোমরা তথায় চিরকাল অবস্থান করবে

72.

এই যে, জান্নাতের উত্তরাধিকারী তোমরা হয়েছ, এটা তোমাদের কর্মের ফল

73.

তথায় তোমাদের জন্যে আছে প্রচুর ফল-মূল, তা থেকে তোমরা আহার করবে

74.

নিশ্চয় অপরাধীরা জাহান্নামের আযাবে চিরকাল থাকবে

75.

তাদের থেকে আযাব লাঘব করা হবে না এবং তারা তাতেই থাকবে হতাশ হয়ে

76.

আমি তাদের প্রতি জুলুম করিনি; কিন্তু তারাই ছিল জালেম

77.

তারা ডেকে বলবে, হে মালেক, পালনকর্তা আমাদের কিসসাই শেষ করে দিন

সে বলবে, নিশ্চয় তোমরা চিরকাল থাকবে

78.

আমি তোমাদের কাছে সত্যধর্ম পৌঁছিয়েছি; কিন্তু তোমাদের অধিকাংশই সত্যধর্মে নিস্পৃহ!

79.

তারা কি কোন ব্যবস্থা চুড়ান্ত করেছে? তাহলে আমিও এক ব্যবস্থা চুড়ান্ত করেছি

80.

তারা কি মনে করে যে, আমি তাদের গোপন বিষয় ও গোপন পরামর্শ শুনি না?

হঁযা, শুনি

আমার ফেরেশতাগণ তাদের নিকটে থেকে লিপিবদ্ধ করে

81.

বলুন, দয়াময় আল্লাহর কোন সন্তান থাকলে আমি সর্ব প্রথম তার এবাদত করব

82.

তারা যা বর্ণনা করে, তা থেকে নভোমন্ডল ও ভূমন্ডলের পালনকর্তা, আরশের পালনকর্তা পবিত্র

83.

অতএব, তাদেরকে বাকচাতুরী ও ক্রীড়া-কৌতুক করতে দিন সেই দিবসের সাক্ষাত পর্যন্ত, যার ওয়াদা তাদেরকে দেয়া হয়

84.

তিনিই উপাস্য নভোমন্ডলে এবং তিনিই উপাস্য ভুমন্ডলে

তিনি প্রজ্ঞাময়, সর্বজ্ঞ,

85.

বরকতময় তিনিই, নভোমন্ডল, ভূমন্ডল ও এতদুভয়ের মধ্যবর্তী সবকিছু যার

তাঁরই কাছে আছে কেয়ামতের জ্ঞান

এবং তাঁরই দিকে তোমরা প্রত্যাবর্তিত হবে

86.

তিনি ব্যতীত তারা যাদের পুজা করে, তারা সুপারিশের অধিকারী হবে না,

তবে যারা সত্য স্বীকার করত ও বিশ্বাস করত

87.

যদি আপনি তাদেরকে জিজ্ঞাসা করেন, কে তাদেরকে সৃষ্টি করেছেন, তবে অবশ্যই তারা বলবে, আল্লাহ,

অতঃপর তারা কোথায় ফিরে যাচ্ছে ?

88.

রসূলের এই উক্তির কসম, হে আমার পালনকর্তা, এ সম্প্রদায় তো বিশ্বাস স্থাপন করে না

89.

অতএব, আপনি তাদের থেকে মুখ ফিরিয়ে নিন এবং বলুন, সালাম

তারা শীঘ্রই জানতে পারবে

*******

Copy Rights:

Zahid Javed Rana, Abid Javed Rana, Lahore, Pakistan

Visits wef 2016

AmazingCounters.com